ধর্ষক রাকিবের খুনি হারকিউলিস

বরিশাল: শুক্রবার পহেলা ফেব্রুয়ারি এক ধর্ষকের গুলিবিদ্ধ লাশ পাওয়া গেছে। তার গলায় ঝুলানো লেমেনেটিং কাগজে স্বীকৃতিমূলক বক্তব্য , আমি পিরোজপুর ভান্ডারিয়ার কারিমার ধর্ষক রাকিব, ধর্ষকের পরিণতি ইহাই, ধর্ষকরা সাবধান, হারকিউলিস। এর আগে ২৬ জানুয়ারি একইভাবে একজনের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

রাকিব হোসেন মোল্লা (২৮) নামের ঐ যুবকের লাশ ঝালকাঠির রাজাপুর থেকে পুলিশ উদ্ধার করে। রাকিব পিরোজপুরের ভান্ডারিয়া উপজেলার ভিটাবাড়িয়া নামক গ্রামের কালাম মোল্লার ছেলে। একটি প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন বিভাগে পড়াশুনা করতো রাকিব। রাকিবের নামে ভান্ডারিয়া থানায় একটি ধর্ষণের মামলা রয়েছে। একই মামলার অপর আসামী সজল এর লাশ গত ২৬ জানুয়ারি কাঁঠালিয়ার বীণাপানি থেকে উদ্ধার করা হয়েছিল।

রাজাপুর থানার ওসি জাহিদ হোসেন প্রবাসী টিভি কে জানান, স্থানীয় লোকজন রাকিবের লাশ পড়ে থাকতে দেখে আমাদের খবর দিলে আমরা সেখানে ছুটে যাই। আমরা সেখানে গিয়ে তার মাথায় গুলিবিদ্ধ এবং শরীরের বিভিন্ন স্থানে ক্ষতচিহ্নযুক্ত লাশ দেখতে পাই এবং গলায় ঝুলানো একটি লেমেনেটিং পেপার।তাতে লেখা, আমি পিরোজপুর ভান্ডারিয়ার কারিমার ধর্ষক রাকিব, ধর্ষকের পরিণতি ইহাই, ধর্ষকরা সাবধান, হারকিউলিস।

পুলিশের বরাতে জানা যায়, গত ১২ জানুয়ারি বেড়াতে যাওয়ার পথে ধর্ষণের শিকার হন কারিমা নামের এক মাদ্রাসা শিক্ষার্থী। তারপর ১৪ জানুয়ারি সজল এবং রাকিবের নামে ভান্ডারিয়া থানায় একটি মামলা হয়।

Related Posts