হারিয়ে যাওয়ার পথে মৃতপ্রায় চার ভাষা

বিশ্বের প্রায় অর্ধেক মানুষ ১৩টি ভাষায় কথা বলে। তারমধ্যে আবার মান্দারি, ইংরেজি ও হিন্দি ভাষাই বেশি। এসব ভাষাগুলো সবচেয়ে জনপ্রিয় ও বেশি ব্যবহার হচ্ছে।

২০০৯ সালে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক আন্তর্জাতিক সংস্থা সামার ইনস্টিটিউট অব লিঙ্গুইস্টিকস (এসআইএল) এর গবেষণার উঠে আসে, সমগ্র পৃথিবীতে ছয় হাজার ৯০৯ ভাষার বাস। তবে প্রায় দুই হাজার ভাষায় এক হাজারের কম মানুষ কথা বলতে পারে।

তনুশ্রী দত্ত একজন ভারতীয় মডেল এবং বলিউড অভিনেত্রী।ঝাড়খণ্ডের বাঙালি হিন্দু পরিবারের মেয়ে।

আবার কিছু ভাষা বিলুপ্তির পথে। এমনই হারিয়ে যাওয়ার পথে মুখের চার ভাষা- 

সুয়েনা ভাষা

পাপুয়া নিউজিনির একটি দ্বীপ মরব। সেখানকার আদিবাসীরা সুয়েনা ভাষায় কথা বলত। গেল শতাব্দীতে এলাকাটিতে বাসকারী সংখ্যাগরিষ্ঠ সম্প্রদায় ইয়ারাই এই ভাষায় কথা বলত। কিন্তু সেই অবস্থা আর নেই। বিনানদার ভাষা প্রভাব বিস্তার করেছে সম্প্রদায়টিতে।  অস্ট্রেলেশীয় ভাষার পাশাপাশি পাপুয়া নিউগিনিতে রয়েছে অনেক ভাষার বৈচিত্র্য।  অঞ্চলটিতে প্রায় ৮০০ ভাষার প্রচলন।

নিজের বিয়ের ভাবনা এবং ছেলের বলিউডে অভিনয়! যা বললেন মালাইকা আরোরা

ইয়াগন ভাষা

আর্জেন্টিনার তিয়েরা দেল ফুয়েগো প্রদেশে বসবাস করে ইয়াগন সম্প্রদায়। তাঁদের মুখের ভাষা ইয়াগন বা ইয়াঘন। ম্যাজিলান প্রণালি বিভক্ত করেছে প্রদেশটিকে। একসময় দক্ষিণ আমেরিকার অন্যতম প্রধান ভাষা ছিল এটি। ফকল্যান্ড দ্বীপগুলোর কেপ্পেলের বাসিন্দারা ইয়াগন ভাষায় কথা বলত। পরিস্থিতি পালটেছে অনেক, সেখানে ভাষাভাষীর একজন মানুষকেই পাওয়া যায়।

সফল ফ্রিল্যান্সার হতে চাইলে করনীয় ?

উইনটুয়ান ভাষা ভাষা

উইনটু, পাটউইন ও নমলাকি গোষ্ঠীর মানুষজনের মুখের ভাষা ছিল উইনটুয়ান। এই অধিবাসীদের বাস ক্যালিফোর্নিয়ার সাক্রামেন্তো উপত্যকায়। সেখানে ইউরোপীয়দের আগমনের পর আগতের ব্যবহৃত ভাষার প্রভাবে আমেরিকান প্রাচীন বাসিন্দাদের এ ভাষা বিলুপ্তির পথে। বর্তমানে সেখানে দুজন মানুষ ভাষা কথা বলতে ব্যবহার করে।

ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইলে ফলোয়ার সংখ্যা বাজিমাত করেছেন বলিউড তারকা সানি লিওন

ভলো ভাষা

দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপগুলোর একটি ভানাতুর। সেখানকার বিভিন্ন ভাষায় কথা বলতে পারে। তাঁদের কথা বলার ভাষাগুলোর মধ্যে একটি হলো ভলো।  সেখানে একজন মানুষই ভলো ভাষায় কথা বলতে পারে।

প্রবাসী টিভির ফেসবুক গ্রুপে যোগ দিতে এখানে ক্লিক করুন।

Related Posts